ডেস্ক নিউজ:

দেশের প্রধান পর্যটন শহর কক্সবাজারের ভাঙাচোরা অলিগলি এবং রাস্তা-ঘাট নিয়ে ভুক্তভোগীরা নেমেছে এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। কোনো মিছিল-সমাবেশ নয়, নয় মানববন্ধনসহ অন্যান্য প্রতিবাদ কর্মসূচিও। যে যেভাবেই পারে কেবল ফেসবুক আইডিতেই প্রতিবাদ জানিয়ে যাচ্ছে।

এমনকি সর্বশেষ কক্সবাজার পৌর শহরের প্রধান সড়কটির মাত্র চার কিলোমিটার খানাখন্দকে ভরা এলাকা সংস্কারের জন্য বেশির ভাগ ফেসবুক আইডিধারীরা খোদ প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন রাখছেন। ফেসবুক আইডিধারীদের অনেকেই স্ব স্ব আইডিতে দেওয়া পোস্টে বলেছেন- তারা স্থানীয় কর্তৃপক্ষের কাছে আর আস্থা রাখতে পারছেন না। তাই উপায়ন্তর না দেখে পর্যটন শহরের রাস্তা সংস্কারের এমন একটি ক্ষুদ্র আবদার নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করতে বাধ্য হচ্ছেন।

কক্সবাজারের রাস্তা-ঘাট তদারকির কাজে দায়িত্বে রয়েছেন সড়ক ও জনপথ বিভাগ, কক্সবাজার পৌরসভা এবং কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক)সহ তিনটি সংস্থা। দীর্ঘকাল ধরে শত বছরের ঐতিহ্যবাহী কক্সবাজার পৌরসভা এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগ নিজেদের আওতাধীন সড়কগুলোর তদারকি করে আসছিল। কিন্তু গত তিন বছর আগে কক্সবাজারে কউক’র কার্যক্রম শুরু হলে সংস্থাটিও সড়কের তদারকির ভাগ দাবি করে বসে।

কউক’র দাবির পরিপ্রেক্ষিতে পর্যটন শহরের অন্যতম জনগুরুত্বসম্পন্ন চলাচলের প্রধান সড়কটি সড়ক ও জনপথ বিভাগ এক বছর আগেই গেজেট নোটিফিকেশন মূলে দায়িত্ব হস্তান্তর করে কউকের কাছে। কিন্তু প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ ও লোকবলের অভাবসহ আরো নানা সংকটের কারণে কউক প্রধান সড়কের সংস্কার কাজ শুরু করতে ব্যর্থ হয়। ফলে উপর্যুপরি টানা দুই বছর ধরে সংস্কারের অভাবে পৌর শহরের একমাত্র প্রধান সড়কটির অনেকাংশ হয়ে পড়ে এক প্রকার চলাচলের অযোগ্য। এমন অবস্থায় শহরবাসী সড়কটি নিয়ে সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগ সহ্য করেছেন গেল বর্ষার সময়।

অপরদিকে কক্সবাজার পৌরসভার অভ্যন্তরীণ সমস্ত সড়ক এবং অলিগলিও দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারবিহীন অবস্থায় পড়ে রয়েছে। ভুক্তভোগীদের অনেকেই এসব অলিগলি এবং সড়কগুলোতে যানবাহনকেও এড়িয়ে চলছেন। যানবাহনে এসব রাস্তায় চলাচল এখন সবচেয়ে কষ্টদায়ক হয়ে পড়েছে। এ কারণে অনেক চলাচলকারী নাগরিক গন্তব্যে যেতে যানবাহন এড়িয়ে হাঁটাকেই নিরাপদ মনে করছেন।

সড়কের অনিরাপদ চলাচল নিয়ে লোকজন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট প্রতিকার দাবি করেও ব্যর্থ। তাই ধৈর্যহারা লোকজন এখন আশ্রয় নিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের। এমনকি কক্সবাজার পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান রবিবার তার নিজের নামের ফেসবুক আইডিতে কউক কর্তৃপক্ষের অনুমতি পেলে তিনি নিজের অর্থায়নে শহরের প্রধান সড়কটি সংস্কারের ইচ্ছার কথাও ব্যক্ত করেছেন। তবে শহরে চলাচলের সময় সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগের মুখে পড়ে পর্যটন শহর থেকে বিমুখ হয়ে ফিরছেন এ শহরে আসা ভ্রমণ পিপাসু লোকজন। এমনকি গেল সপ্তাহের অকাল বর্ষণে পানি জমে পৌরবাসী ও পর্যটকদের অবস্থা আরো কাহিল করে দিয়েছে।

এসব বিষয় নিয়ে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘ভুক্তভোগী পৌরবাসীসহ অনেক ভ্রমণকারী পর্যটকরাও প্রতিনিয়িত শহরের সড়কের ব্যাপারে আমার দৃষ্টি আকর্ষণ করে থাকেন। আমি কার্যকর পদক্ষেপ নিতে পৌরসভা, কউক ও সওজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমন্বয় করে চলেছি।’

পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান জানিয়েছেন, পৌরসভার অভ্যন্তরীণ ভাঙাচোরা বেশির ভাগ সড়কের টেন্ডার ইতিমধ্যে হয়েছে। শিগগিরই দৃশ্যমান কাজ হবে। কউক চেয়ারম্যান লে. কর্নেল ফোরকান আহমদ জানিয়েছেন, শহরের বাইপাস সড়কের কাজ চলছে। শিগিগরই প্রধান সড়কের কাজও শুরু হবে।

সূত্র: কালের কন্ঠ

 

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার মন্তব্য

Please enter your comment!
আপনার নাম লিখুন